মঙ্গলবার , ১১ ডিসেম্বর ২০১৮


এলো অপরাধী ধরার সফটওয়্যার





অনলাইন ডেস্ক : নিজেদের লুকিয়ে রাখা অপরাধীরা এবার সহজে ধরা পড়বে। প্রযুক্তির কল্যাণে মুখ লুকিয়ে, নাম-ধাম ঢাকা-চাপা রেখে নিজের পরিচয় গোপন করতে পারবে না তারা। একটি অত্যাধুনিক সফটওয়্যারের মাধ্যমে হাঁটা-চলার ভঙ্গি, সেই সময় শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গ কিভাবে ওঠা-নামা করে বা সেগুলি কিভাবে থাকে শরীরের কোন কোন দিকে, তা জরিপ করেই এবার দূর থেকে জেনে যাওয়া যাবে অপরাধীদের পরিচিতি।

মানুষের ওপর নজরদারির এই অভিনব প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছে চীনা সংস্থা ‘ওয়াট্রিক্স’। নজরদারির জন্য ইতিমধ্যেই সেই আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার শুরু হয়ে গিয়েছে চীনের দু’টি এলাকা, রাজধানী বেজিং ও সাংহাই প্রদেশে। এই প্রযুক্তির নাম- ‘গেইট রেকগনিশন’। এর জন্য আলাদা ভাবে নিরাপত্তাকর্মী রাখতে হবে না। মোতায়েন করতে হবে না অস্ত্রধারী পুলিশও। ওই সফটওয়্যারই আপনাআপনি চীনে ফেলবে অপরাধীকে। তবে সামান্য একটু সময় লাগবে। মুখ লুকোতে চাওয়া মানুষের চালচলন দেখে, শরীরী বিভঙ্গের মাপজোক করে তার নাম-ধাম-পরিচিতি মিনিট দশেকের মধ্যেই জানিয়ে দেবে ওই ‘গেইট রেকগনিশন’ সফটওয়্যার।

চীনা সংস্থা ‘ওয়াট্রিক্স’-এর সিইও হুয়াং ইয়ংঝেন বলেছেন, ‘যে কোনও বায়োমেট্রিক পদ্ধতি, ফেসিয়াল রেকগনিশন পদ্ধতির চেয়ে ঢের ভাল এই পদ্ধতি। ফেসিয়াল রেকগনিশন পদ্ধতির যেটা মূল অসুবিধা, তা হল কৌশলে মুখ লুকিয়ে রাখতে পারলেই নজরদারির পাল্লা থেকে দূরে থাকা যায়। কিন্তু গেইট রেকগনিশন যেহেতু চালচলনের ছন্দ আর শরীরের নানা বিভঙ্গের জরিপ করেই অপরাধীদের চিনে ফেলতে পারে, তাই এর চোখ এড়ানো কঠিন।’

চীনের পশ্চিম প্রান্তে শিনজিয়াং প্রদেশে ইতিমধ্যেই এই প্রযুক্তির বহুল ব্যবহার শুরু হয়েছে। তবে এই প্রযুক্তি যে এই প্রথম বাজারে এলো, তা কিন্তু নয়। এই প্রযুক্তিকে বাজারে আনার চেষ্টা এর আগে চালিয়েছে জাপান, ব্রিটেন ও আমেরিকা। কিন্তু প্রযুক্তির সাফল্যের নিরিখে তা টেকেনি।

‘ওয়াট্রিক্স’-এর সিইও ইয়ংঝেন জানিয়েছেন, কারও চালচলনের ছন্দ, শরীরের নানা বিভঙ্গের ভিসুয়্যাল থেকে একটি সিল্যুয়েট কেটে নিয়ে তাকে টুকরো টুকরো করে বিশ্লেষণ করেই ওই সফটওয়্যার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি সম্পর্কে তার ‘মেমরি’ তৈরি করে ফেলে। আর তারই প্রেক্ষিতে, মুখ লুকোতে চাইলেও, ধরে ফেলে অপরাধীকে। তবে ফেস রেকগনিকশন প্রযুক্তির চেয়ে এতে সময় লাগে একটু বেশি। প্রযুক্তির উন্নয়নের মাধ্যমে সেই বাধাও ভবিষ্যতে কমিয়ে ফেলা সম্ভব, আশা ইয়ংঝেনের।



প্রকাশক ও সম্পাদক : শাহিন রহমান

অফিস : ১১৪ নাখালপাড়া, ঢাকা-১২১৫
Email : prothomshomoy@gmail.com